পারমাণবিক ভর কাকে বলে ?

এই বিজ্ঞান বিষয়ক আর্টিকেলে " পারমাণবিক ভর কাকে বলে ?" এই বিষয়ে বিষদে জানবো। পরমাণুর আকার অতি ক্ষুদ্র, ফলে সরাসরি তুলাদণ্ডের সাহায্যে কখনোই এর ভর নির্ণয় করা সম্ভব হয় না। 

তাই বিজ্ঞানীরা পরমাণুর ভরকে তুলনামূলক বা আপেক্ষিক ভরের মাধ্যমে প্রকাশের সিদ্ধান্ত নেন এবং এই আপেক্ষিক ভরকেই বলা হয় পারমাণবিক ভর।

পারমাণবিক ভর কাকে বলে ?


পারমাণবিক ভরকে আমরা পারমাণবিক গুরুত্ব বা আপেক্ষিক পারমাণবিক ভরও বলে থাকি।

ইংরেজিতে পারমাণবিক ভরকে Atomic mass বা Atomic weight বলে।

পারমাণবিক ভরের বিভিন্ন স্কেল

মৌলের আপেক্ষিক পারমাণবিক ভর নির্ণয়ের জন্য প্রথম দিকে হাইড্রোজেনকে ও পরে অক্সিজেনকে, প্রামাণ্য মৌল হিসেবে ধরা হলেও বর্তমানে কার্বনকে প্রামাণ্য মৌল হিসেবে ধরা হয়।

পারমাণবিক ভর কাকে বলে ?

এবার আমরা বিভিন্ন স্কেলে পারমাণবিক ভর কাকে বলে তা জানবো।

হাইড্রোজেন স্কেলে: কোনো মৌলের একটি পরমাণুর ভর একটি হাইড্রোজেন পরমাণুর ভরের তুলনায় যত গুণ ভারী, তত গুণকে ওই মৌলের পারমাণবিক ভর বলে।


অর্থাৎ, পারমাণবিক ভর =  মৌলের একটি পরমাণুর ভর / হাইড্রোজেনের একটি পরমাণুর ভর

যেমন - নাইট্রোজেনের পারমাণবিক ভর 14 বলতে বোঝায় নাইট্রোজেনের একটি পরমাণুর ভর একটি হাইড্রোজেন পরমাণুর ভরের তুলনায়  14 গুণ ভারী। 


অক্সিজেন স্কেলে : কোনো মৌলের একটি পরমাণুর ভর একটি অক্সিজেন পরমাণুর ভরের 1/16 অংশের  তুলনায় যত গুণ ভারী, তত গুণকে ওই মৌলের পারমাণবিক ভর বলে।


অর্থাৎ, পারমাণবিক ভর =  মৌলের একটি পরমাণুর ভর / অক্সিজেনের একটি পরমাণুর ভর × 1/16 অংশ

বা, পারমাণবিক ভর =  ( মৌলের একটি পরমাণুর ভর / অক্সিজেনের একটি পরমাণুর ভর ) × 16

যেমন - সালফারের পারমাণবিক ভর 32 বলতে বোঝায় সালফারের একটি পরমাণুর ভর একটি অক্সিজেন  পরমাণুর ভরের 1/16 অংশের তুলনায়  32 গুণ ভারী।


কার্বন স্কেলে : কোনো মৌলের একটি পরমাণুর ভর একটি ¹²C পরমাণুর ভরের 1/12 অংশের  তুলনায় যত গুণ ভারী, তত গুণকে ওই মৌলের পারমাণবিক ভর বলে। এটিই আন্তর্জাতিক নিয়মে (IUPAC) পারমাণবিক ভরের সংজ্ঞা।


অর্থাৎ, পারমাণবিক ভর =  মৌলের একটি পরমাণুর ভর / কার্বনের একটি পরমাণুর ভর × 1/12 অংশ

বা, পারমাণবিক ভর =  ( মৌলের একটি পরমাণুর ভর / কার্বনের একটি পরমাণুর ভর ) × 12

যেমন - ক্যালশিয়ামের পারমাণবিক ভর 40 বলতে বোঝায় ক্যালশিয়ামের একটি পরমাণুর ভর একটি ¹²C পরমাণুর ভরের 1/12 অংশের  তুলনায়  40 গুণ ভারী।


*পারমাণবিক ভর দুটি ভরের তুলনামূলক রাশি হওয়ায় এটি একটি এককবিহীন রাশি।


অস্কিজেনের নিরিখে আবার পারমাণবিক ভরকে দুটি স্কেলে নির্ণয় করা হয়-

রসায়নিক স্কেলে ও ভৌত স্কেলে।


আরও জানার বিষয় : ডালটনের পরমাণুবাদ


পারমাণবিক ভরের রাসায়নিক স্কেল:


প্রাকৃতিক অক্সিজেনের একটি পরমাণুর আনুপাতিক গড় ভরকে 16 ধরে পারমাণবিক ভরের যে স্কেল পাওয়া যায়, তাকে পারমাণবিক ভরের রাসায়নিক স্কেল বলে।


পারমাণবিক ভরের রাসায়নিক স্কেল অনুযায়ী কোনো মৌলের যে পারমাণবিক ভর পাওয়া যায়, তাকে ওই মৌলের রাসায়নিক পারমাণবিক ভর (chemical atomic mass) বলে।


প্রাকৃতিক অক্সিজেন ¹⁶O, ¹⁷O, ¹⁸O আইসোটোপের মিশ্রণ। প্রকৃতিতে এদের প্রাচুর্যের পরিমাণ যথাক্রমে 99.759%, 0.037% ও 0.204%। কিন্তু অক্সিজেনের উৎস অনুযায়ী আইসোটোপগুলির আপেক্ষিক পরিমাণের পরিবর্তন হয়ে থাকে (যদিও এই পরিবর্তন অতি সামান্য)। ফলে উৎসভেদে অক্সিজেন পরমাণুর ভরের আনুপাতিক গড় মানও পরিবর্তিত হয়।


কাজেই, এই পদ্ধতিতে মৌলের পারমাণবিক ভরের স্থির মান পাওয়া যায় না। এই অসুবিধা দূর করার জন্য পদার্থবিদ্‌ অ্যাস্টন (Aston) পারমাণবিক ভরের ভৌত স্কেল প্রবর্তন করেন।


পারমাণবিক ভরের ভৌত স্কেল:


প্রাকৃতিক অক্সিজেনের ¹⁶O সমস্থানিকের একটি পরমাণুর ভরকে 16 ধরে পারমাণবিক ভরের যে স্কেল পাওয়া যায়, তাকে পারমাণবিক ভরের ভৌত স্কেল বলে, পারমাণবিক ভরের ভৌত স্কেল অনুযায়ী কোনো মৌলের যে পারমাণবিক ভর পাওয়া যায়, তাকে ওই মৌলের ভৌত পারমাণবিক ভর (physical atomic mass) বলে।


পারমাণবিক ভরের ভৌত স্কেল অনুযায়ী প্রাকৃতিক অক্সিজেনের পারমাণবিক ভর = 16.00447 | কিন্তু রাসায়নিক স্কেলে প্রাকৃতিক অক্সিজেনের পারমাণবিক ভর = 16.000 |


রাসায়নিক স্কেলে 16.000 একক = ভৌত স্কেলে 16.00447 একক

অর্থাৎ, রাসায়নিক স্কেলে 1 একক = ভৌত স্কেলে 16.00447/16.000 একক = 1.0002794


কাজেই, কোনো নির্দিষ্ট মৌলের ক্ষেত্রে রাসায়নিক স্কেল অনুযায়ী পারমাণবিক ভরের মান ভৌত স্কেল অনুযায়ী পারমাণবিক ভরের মান অপেক্ষা কম হয় ।


রাসায়নিক স্কেলে পারমাণবিক ভর = ভৌত স্কেলে পারমাণবিক ভর / 1.0002794


গড় পারমাণবিক ভর :


কোনো মৌলের আইসোটোপ থাকলে সেক্ষেত্রে গড় পারমাণবিক ভর নির্ণয় করার প্র‍য়োজন হয়।


সেক্ষত্রে পারমাণবিক ভর = ( আইসোটোপের শতকরা পরিমাণ × আইসোটোপের পা: ভর) / 100


উদাহরণ :

ক্লোরিনের দুটি আইসোটোপ ³⁵Cl ও ³⁷Cl শতকরা পরিমাণ যথাক্রমে 75% ও 25%

সুতরাং ক্লোরিনের পারমাণবিক ভর = (35×75+37×25)/100 = 35.5


কিছু মৌলের পারমাণবিক ভর :


নিচের মৌলগুলির পাশে পারমাণবিক সংখ্যা দেওয়া হয়েছে, সে অনুযায়ী পারমাণবিক ভর দ্বিগুন হয়। ব্যতিক্রম লক্ষণীয়। নিচের মৌলগুলি কমন মৌল তাই এদের পারমাণবিক ভর মনে রাখা উচিৎ।


মৌল

পারমাণবিক ভর 

মৌল

পারমাণবিক ভর

1.H

1 ( 1.008)

13.Al

27

2.He

4

14.Si

28

6. C

12

15.P

31

7. N

14

16.S

32

8.O

16

17.Cl

35.5

9.F

19

19.K

39

11.Na

23

20.Ca

40

12.Mg

24

26.Fe

55.5



গ্রাম-পারমাণবিক ভর :


কোনো মৌলের পারমাণবিক ভরকে গ্রামে প্রকাশিত করলে যা হয় তাকে সেই মৌলের গ্রাম-পারমাণবিক ভর বলে।

যেমন- পটাশিয়ামের পারমাণবিক ভর 39,  সুতরাং পটাশিয়ামের গ্রাম পারমাণবিক ভর 39 গ্রাম।


গ্রাম-পরমাণু: 


পারমাণবিক ভরকে গ্রামে প্রকাশ করলে যত গ্রাম হয়, তত গ্রাম ভরের মৌলকে 1 গ্রাম-পরমাণু বলে।


মৌলের গ্রাম-পরমাণু সংখ্যা = মৌলের প্রদত্ত ভর(গ্রামে)  / মৌলের গ্রাম-পারমাণবিক ভর।



Post a Comment (0)
Previous Post Next Post